মতলব উত্তর উপজেলা পরিচিতি ইংরেজিঃ Matlab Uttar Upazila । মতলব উত্তর উপজেলা বাংলাদেশের চাঁদপুর জেলার একটি প্রশাসনিক এলাকা।

আজকে আমি আপানদের সাথে মতলব উত্তর উপজেলা পরিচিতি নিয়ে আলোচনা করব। তো চলুন শুরু করা যাক…।

পরিচ্ছেদসমূহ

মতলব উত্তর উপজেলা ম্যাপ

মতলব উত্তর উপজেলা ম্যাপ

একনজরে মতলব উত্তর উপজেলা পরিচিতি

দেশের নাম বাংলাদেশ
বিভাগ চট্টগ্রাম বিভাগ
জেলা চাঁদপুর
থানা / উপজেলা মতলব উত্তর
উপজেলার আয়তন ২৭৭.৫৩ কিমি২ (১০৭.১৫ বর্গমাইল)
নির্বাচনী আসন চাঁদপুর-২
পোস্ট কোড ৩৬৪০
গ্রাম ২,৮৪টি
মৌজা ১৪৭টি
ইউনিয়ন ১৪টি
পৌরসভা ১টি
জনসংখ্যা ২,৯২,০৫৭, জন (প্রায়)
জনসংখ্যার ঘনত্ব ১,৮৪৮ জন (প্রতি বর্গ কি.মি.)
জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ১.৩০%
পুরুষ ১৪০৭৫৩
মহিলা ১৫১৩০৪
মোট ভোটার সংখ্যা ১,৯৯,২১০ জন
মোট পরিবার সংখ্যা ৬৩,৭৮৪

মতলব উত্তর উপজেলার আরও তথ্য

মসজিদ ৪০১টি
মন্দির ৬৯টি
নদী মেঘনা, ধনাগোদা
হাট বাজার ১৯টি
ব্যাংকের শাখা ১২টি
পোস্ট অফিস / সাব পোস্ট অফিস ২৯টি
টেলিফোন এক্সচেঞ্জ ০১
ছোট কুটির শিল্প ৭৮১টি
বড় শিল্প ৩টি

মতলব উত্তর উপজেলার কৃষি সংক্রান্ত তথ্য

নেট ফসলি জমি ১৮,৩৯০ হেক্টর
মোট ফসল জমি ৩৯,১০৩ হেক্টর
এক ফসলি জমি ৪৪২৯ হেক্টর
দুই ফসলি জমি ১০৭০২ হেক্টর
তিন ফসলি জমি ২০৪৩ হেক্টর
গভীর নলকূপ ১২৩টি
নন-গভীর নলকূপ ২,৪২৩টি
শক্তি চালিত পাম্প ৪৮৮টি
বার্ষিক খাদ্য চাহিদা ৭৮২,৬৬৭ টন
নলকূপ ৪,২৭৬টি

মতলব উত্তর উপজেলার শিক্ষা সংক্রান্ত তথ্য

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ১২০টি
নন-সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ২৭টি
কমিউনিটি প্রাথমিক বিদ্যালয় ২১টি
জুনিয়র উচ্চ বিদ্যালয় ৪টি
উচ্চ বিদ্যালয় (সহ শিক্ষা) ৩১টি
উচ্চ বিদ্যালয় (মেয়ে) ২টি
দাখিল মাদ্রাসা ৪টি
আলিম মাদ্রাসা ৩টি
ফজিল মাদ্রাসা ২টি
কামিল মাদ্রাসা ১টি
কলেজ (ক্লাস) ৬টি
কলেজের মেয়ে) ১টি
স্বাক্ষরতার হার ৭৩%
পুরুষ ৭২%
মহিলা ৭৬%

মতলব উত্তর উপজেলার স্বাস্থ্য সংক্রান্ত তথ্য

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ১টি
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র ১৩টি
বিছানা সংখ্যা ৫০ শয্যা
ডাক্তারের ওয়ার্ড সংখ্যা ৩৭টি
ডাক্তার সংখ্যা ইউএইচসিঃ ১৭; ইউনিয়ন লেভেলঃ ১৬; ইউএইচপিপিওঃ ১; মোট = ৩৪জন
সিনিয়র নার্স সংখ্যা ১৫জন
সহকারী নার্স সংখ্যা ১জন

মতলব উত্তর উপজেলার যোগাযোগ সম্পর্কিত তথ্য

কংক্রিট রাস্তা ১০৩.৩৯ কিলোমিটার
হাফ ওয়ে ১৮.৫৯ কিলোমিটার
মাটি রাস্তা ৩৫.৬৯ কিলোমিটার
সেতু / কালভার্ট ২৫৫টি
নদী ২টি

মতলব উত্তর উপজেলার ইউনিয়ন সমূহ

নিম্নোক্ত ইউনিয়ন পরিষদ্গুলো নিয়ে মতলব উত্তর উপজেলা গঠিতঃ

১) বাগানবাড়ি ইউনিয়ন পরিষদ

২) ষাটনল ইউনিয়ন পরিষদ

৩) ফরাজীকান্দি ইউনিয়ন পরিষদ

৪) পুর্ব ফতেহপুর ইউনিয়ন পরিষদ

৫) পশ্চিম ফতেহপুর ইউনিয়ন পরিষদ

৬) ইসলামাবাদ ইউনিয়ন পরিষদ

৭) কলাকান্দা ইউনিয়ন পরিষদ

৮) মোহনপুর ইউনিয়ন পরিষদ

৯) সাদুল্লাহপুর ইউনিয়ন পরিষদ

১০) এখলাছপুর ইউনিয়ন পরিষদ

১১) সুলতানাবাদ ইউনিয়ন পরিষদ

১২) জহিরাবাদ ইউনিয়ন পরিষদ

১৩) গজরা ইউনিয়ন পরিষদ

১৪) দূর্গাপুর ইউনিয়ন পরিষদ

মতলব উত্তর উপজেলার পৌরসভা

মতলব উত্তর উপজেলার পৌরসভা ১টিঃ

১) ছেংগারচর পৌরসভা

মতলব উত্তর উপজেলার ইতিকথা

এবার আমরা জানব মতলব উত্তর উপজেলার ইতিকথা বা পটভূমি সম্পর্কেঃ

মোঘল আমলে বর্তমান বাবু পাড়া ও পৈল পাড়া গ্রামদ্বয়ের উত্তর প্রান্তে গোমতীর শাখা ধনাগোদা নদীর তীরে অবস্থিত লালার হাট বাজারটি নদী ভাঙ্গনে বিলীন হলে কলাদী গ্রামের উত্তর প্রান্তে উপরোক্ত নদীর তীরে ‘‘ বৈরাগীর হাট ’’ নামে একটি বাজার মিলায় । যা দেখে ঈষানিত হয়ে ফরিদপুরের জমিদারের জমিদারী বেড়ে মতলব জমাদার বৈরাগীর হাটের দক্ষিনে পশ্চিম আংশে নিজ নামে আরেকটি বাজার মিলায়।

কিছুকাল দুটি বাজারই তীব্র প্রতিযোগিতায় চলার পর জমাদারের হাট মতলব নামে জনপ্রিয়তা অর্জন করে। আর বৈরাগীর হাট নামটি বিলুপ্ত হয়। এভাবেই মতলব জমাদারের নাম অনুসারে মতলব এর নাম করন করা হয়।

১৯১৮ সালের ৯ আগষ্ট মতলব গেজেটভূক্ত হয়। গেজেট নম্বর ২৩৮ । ঐতিহাসিকদের মতে মতলব উপজেলার নামকরন করা হয় প্রায় ১২০ বছর পূর্বে। হিন্দু প্রধান এলাকা হিসাবে এখানে অনেক বাউল, বৈরাগী ও তান্ত্রীদের আখড়া ছিল। ১৯০০সালে গর্ভমেন্ট চাঁদপুর সার্কেল বিভক্ত করে মতলব সার্কেল সৃষ্টি করে। ফলে ২২টি ইউনিয়ন নিয়ে ঐ থানার অগ্রযাত্রা শুরু করে।

স্বাধীনতা উত্তর মতলব এলাকার জনগনের দীর্ঘ দিনের দাবী , মতলব উত্তর একটি স্বতন্ত্র থানার সৃষ্টি করা হউক। ২০০০ সালের ৩০ এপ্রিল ১টি পৌরসভা এবং ১৩টি ইউনিয়ন নিয়ে স্বতন্ত্র উপজেলা হিসেবে মেঘনা-ধনাগোদা নদী পরিবেষ্টিত দ্বীপাঞ্চল মতলব উত্তর উপজেলার যাত্রা শুরু হয়।

মতলব উত্তর উপজেলার নামকরণ এর ইতিহাস

পরবর্তীতে একই বছরের ৫ সেপ্টেম্বর মতলব উত্তর নব-সৃষ্ট উপজেলা হিসাবে কার্যক্রম শুরু করে। পাশ্ববর্তী মতলব উপজেলার উত্তর দিকে হওয়ার ফলে এ উপজেলার নামকরণ করা হয় মতলব উত্তর।

মতলব উত্তর এর রয়েছে ঐতিহাসিক নিদর্শন, শিক্ষা, সংস্কৃতি ও ধর্মীয় খ্যাতি । কৃষি উৎপাদনে সেচ প্রদান, বন্যার ক্ষয় ক্ষতি থেকে এলাকাবাসীকে রক্ষা , জলাবদ্ধতা নিরসন ও নদী ভাংঙ্গন থেকে পরিত্রাণের লক্ষ্যে ১৯৮৭-১৯৮৮ অর্থ বছরে নির্মিত হয় মেঘনা ধনাগোদা সেচ প্রকল্প । যা বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহৎ সেচ প্রকল্প । এর বৃত্তাকার ৬৪ কিঃ মিঃ।

সেচ প্রকল্পের জন্য ১৭৫৮৪ হেক্টর জমি অধিগ্রহন করা হয়েছে । মতলব উত্তর উপজেলাটি উত্তর ও উত্তর পশ্চিম দিকে মেঘনা নদী ও পূর্ব দিকে প্রভাহিত ধনাগোদা নদী দ্বারা বেষ্ঠিত। পূর্বে দাউদকান্দি (কুমিল্লা) উত্তরে গজারিয়া (মুন্সিগঞ্জ) দক্ষিনে মতলব (চাঁদপুর) পশ্চিমে শরিয়তপুর ও মুন্সিগঞ্জ জেলা।

মতলব উত্তর উপজেলার জলবায়ু

১২ মাসে মতলব উত্তর উপজেলার জলবায়ুর গড় তাপমাত্রা দেখুন

মাসের নাম তাপমাত্রা (ডিগ্রী সেলসিয়াস)
জানুয়ারি ১৯.০°
ফেব্রুয়ারি ২১.৪°
মার্চ ২৫.৬°
এপ্রিল ২৭.৮°
মে ২৮.৫°
জুন ২৮.২°
জুলাই ২৮.০°
আগস্ট ২৮.১°
সেপ্টেম্বর ২৮.৩°
অক্টোবর ২৭.৩°
নভেম্বর ২৩.৯°
ডিসেম্বর ২০.১°
সূত্রঃ উইকিপিডিয়া

মতলব উত্তর উপজেলার কৃতী ব্যক্তিত্ব

মতলব উত্তর উপজেলার কৃতী ব্যক্তিত্ব রয়েছেন অনেক। এখানে কয়েকজন এর নাম উল্লেখ্য করা হলঃ

১। মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া (বীর বিক্রম) – সাবেক মন্ত্রী

২। হুমায়ূন কবীর ঢালী- প্রখ্যাত শিশু সাহিত্যিক

৩। নওয়াব আলী, ঢাকা মেডিকেল কলেজের প্রথম অধ্যক্ষ

৪। নুরুল হুদা- সাবেক প্রতিমন্ত্রী

মতলব উত্তর উপজেলার দর্শনীয় স্থান সমূহ

মতলব উত্তর উপজেলায় অনেক দর্শনীয় স্থান রয়েছে। উল্লেখযোগ্য কয়েকটি হলঃ

১। সোলেমান শাহ-এর মাজার

২। মেঘনা নদীধনাগোদা নদী

৩। লুধুয়া জমিদারবাড়ি

৪। কলাকান্দা মসজিদ

৫। নাউরী মন্দির ও রথ

৬। জজ নগর শামীমা রাতুল শিশু পার্ক ও মিনি জো

৭। খোদাই পুকুর

৮। মান্দাতলী গ্রাম এর কুয়া

মতলব উত্তর উপজেলার উল্লেখযোগ্য কিছু বাজার এর নাম

১। টুপি বাজার, মতলব

২। ছেংগারচর মার্কেট

৩। গজরা বাজার

৪। কালিপুর বাজার

৫। কালি বাজার

৬। বেলতলী বাজার

৭। বাগান বাজার

৮। মোহনপুর বাজার

৯। নতুন বাজার

১০। নাউরি বাজার

১১। দাসের বাজার

১২। গৌরং বাজার

১৩। মান্দারতলী বাজার

১৪। আমিরাবাদ বাজারে

১৫। সাহেব বাজার

১৬। সুজাতপুর বাজার

১৭। নিশ্চিন্তপুর বাজার

১৮। নন্দলালপুর বাজার

১৯। টর্কি বাজার

২০। দুর্গাপুর বাজার

মতলব উত্তর উল্লেখযোগ্য নদী

মতলব উত্তর উল্লেখযোগ্য নদী মেঘনা ও ধনাগদা। মতলব উত্তর উপজেলাটির চতুর দিকে নদী ।

নদীর দুই তীর পানি উন্নয়ণ বোর্ড কর্তৃক বেড়ী বাধ নির্মাণ করা আছে। এক সময় এ নদীই ছিল মতলব উত্তর উপজেলায় যোগাযোগের প্রধান মাধ্যম।

বর্তমানেও সীমিত আকারে মেঘনা ও ধনাগদা নদীর মাধ্যমে একস্থান থেকে অন্যস্থানে মালামাল পার করা হয় । বর্তমানে এই ধনাগদা নদীর পানি দ্বারা কৃষিকাজ করা হয়।

( বিঃদ্রঃ উপরে দেয়া পরিসংখ্যান এর তথ্য সমূহ bangladesh.gov.bd থেকে নেয়া। )


ট্রিপডো টুঁইটার: TripDaw